Page Nav

HIDE

Post/Page

Weather Location

Breaking !

latest

Big Breaking ! বিজেপির রাজ্য সভাপতি পদ থেকে অপসারিত দিলীপ ঘোষ, নতুন দায়িত্বে বালুরঘাটের সাংসদ !

 


নিউজবাংলা ডেস্ক : আচমকাই বিজেপির রাজ্য সভাপতি পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হল দিলীপ ঘোষ'কে। তাঁর জায়গায় স্থলাভিষিক্ত হলেন সুকান্ত মজুমদার। তিনি বালুরঘাটের বিজেপি সাংসদ। নতুন সভাপতিকে আনুষ্ঠানিক ভাবে দিলীপ ঘোষও স্বাগত জানিয়েছেন। কিন্তু ঠিক কোন কারনে এমন পরিবর্তন তা এখনও পরিষ্কার নয়।

সূত্রের খবর, বাবুল সুপ্রিয় বিজেপির সঙ্গ ত্যাগ করে সরাসরি দিলীপ ঘোষের দিকেই অভিযোগের আঙুল তুলেছিলেন। এছাড়াও বিজেপির অন্দরে দিলীপ ঘোষের গোষ্ঠী কোণঠাসা হয়ে পড়ছিল বলেই খবর। তবে সূত্রের খবর, এদিন যেভাবে দিলীপ ঘোষকে সরিয়ে দেওয়া হল তা আগে থেকে কেউই টের পাননি। এক্ষেত্রে আচমকা উত্তরবঙ্গকে এতটা গুরুত্ব দেওয়ার নামে দিলীপ ঘোষকে অপসারণ নিয়ে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে বিজেপির অন্দরেও।

গত লোকসভায় দিলীপ ঘোষের নেতৃত্বেই ব্যাপক ভাবে সাংগঠনিক শক্তি নিয়ে এই রাজ্যে উঠে এসেছিল বিজেপি। সেই সূত্র ধরেই এবারের বিধানসভায় রাজ্যের ক্ষমতায় আসার স্বপ্ন দেখে বিজেপি নেতৃত্বরা। খোদ প্রধানমন্ত্রী থেকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পাশাপাশি বিজেপি শাসিত একাধিক রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী সহ হেভিওয়েট নেতা মন্ত্রীরা এই রাজ্যের প্রচারে এসেছেন। কিন্তু ফল সেই অর্থে আশানুরূপ হয়নি। পরিবর্তে বিজেপিতে যোগ দিয়েই খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নন্দীগ্রামে হারিয়ে প্রচারের শিরোনামে চলে এসেছেন শুভেন্দু অধিকারী।

দায়িত্বে এসেই সুকান্ত মজুমদার জানিয়েছেন, "আমি একজন সাধারণ মানুষ। আমাকে এমন গুরু দায়িত্ব দিয়েছে দল, এতে আমি ভীষণ খুশি"। তিনি সাফ জানান, "আমি এখন রাজ্য সভাপতি, তাই বিশেষ ভাবে উত্তরবঙ্গ বা দক্ষিণবঙ্গ নয়, আমি গোটা রাজ্যের নেতা হিসেবেই কাজ করতে আগ্রহী"। 

সুকান্তের দাবী, "যারা বিজেপির নীতি আদর্শ নিয়ে বিশ্বাস করেন তাঁরা ভারতীয় জনতা পার্টিতেই থাকবেন। যারা অন্য উদ্দেশ্য নিয়ে দলে রয়েছেন তাঁরা চাইলে যেতেই পারেন"। দিলীপ ঘোষের সম্পর্কে তাঁর উক্তি, "দিলীপদার হাত ধরে দল অনেক শক্ত হয়েছে। তাঁর আশীর্বাদ ও পরামর্শ নিয়েই কাজ করব" জানিয়েছেন সদ্য দায়িত্বপ্রাপ্ত সভাপতি। 

No comments