Page Nav

HIDE

Post/Page

Weather Location

Breaking !

latest

অক্ষয় কুমারের ছবি ‘স্পেশাল ২৬’ কে টেক্কা দিচ্ছে কলকাতায় ধৃত ভুয়ো আমলা দেবাঞ্জনের কর্মকান্ড !

 


নিউজবাংলা ডেস্ক : বছর কয়েক আগে বলিউডের সুপার স্টার অক্ষয় কুমারের ছবি ‘স্পেশাল ২৬’ রীতিমতো আলোড়ন ফেলেছিল সিনেমা প্রেমীদের মনে। ভুয়ো সিবিআই, ভুয়ো ইনকাম ট্যাক্স অফিসার সেজে প্রতারণার নানান মারপ্যাঁচ দেখিয়েছিল টানা ৩ ঘন্টা ধরে। ভুয়ো অভিযান, পেপারে বিজ্ঞাপন দিয়ে ভুয়ো নিয়োগ সবটাই করে দেখিয়েছিলেন অক্ষয়। এবার সেই ‘স্পেশাল ২৬’ সিনেমার গল্পকেও যেন ছাপিয়ে গেল কলকাতায় ধৃত ভুয়ো আইএএস অফিসার দেবাঞ্জন দেব।

দিনের পর দিন নীল বাতি লাগানো গাড়ি নিয়ে কলকাতা শহরের রাস্তায় ঘোরাফেরা, নিজেকে কলকাতা পুরসভার যুগ্ম কমিশনার পরিচয় দিয়ে চাকরীর ইন্টারভিউ নেওয়া, শহর জুড়ে একের পর এক করোনা ভ্যাকসিন ক্যাম্প করে বহু মানুষকে প্রতারণার ফাঁদে ফেলা এই দেবাঞ্জনকে নিয়ে রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছেন তদন্তকারীরা। এর বাইরে দেবাঞ্জন আর কোনও প্রতারণার কান্ড ঘটিয়েছে কিনা তাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

একটানা বেশ কিছুদিন ধরেই খাশ কলকাতা শহরে প্রতারণার ফাঁদ পাতলেও কেউই তাঁর চালাকি ধরতেই পারেননি। তবে মঙ্গলবার সকালে কলকাতা পুরসভার ১০৭নং ওয়ার্ডে ভ্যাকসিন ক্যাম্প চালানোর সময় অতিসক্রিয়তায় যাদবপুরের সাংসদ মিমি চক্রবর্তীকে এনেই ভুল করে এই অভিযুক্ত ব্যক্তি। ভ্যাকসিন পেলেও সার্টিফিকেট না পেয়েই তাঁর সন্দেহ হয়। এবং শেষ পর্যন্ত মিমি’র তৎপরতায় পুলিশের জালে এল অভিযুক্ত।

পুলিশি জেরায় জানা গিয়েছে, প্রায় বছর ৪ ধরে এই প্রতারণা চক্র গড়ে তুলেছিল দেবাঞ্জন। একটি অফিসে জনা কয়েক কর্মীকে মাসে ২০-২৫ হাজার টাকা বেতন দিচ্ছিল। এছাড়াও এক প্রাক্তন বিএসএফ জওয়ানকে নিজের দেহরক্ষী হিসেবেও রেখেছিল সে। এত টাকা কোথা থেকে আসছিল তার হদিশ খুঁজছে পুলিশ। তাছাড়া কেনই বা গাঁটের টাকা খরচ করে এমন ভুয়ো ভ্যাকসিন ক্যাম্প করা হল তা নিয়েও ধ্বন্দ্বে রয়েছে পুলিশ।

তদন্তকারী পুলিশকে দেওয়া তথ্য মিলিয়ে কলকাতার বাগরি মার্কেটে অভিযান চালায় পুলিশ। কিন্তু অভিযুক্ত দেবাঞ্জনের দাবী মতো এই এলাকায় কোনও ভ্যাকসিন কাউন্টারের সন্ধান মেলেনি। তবে দেবাঞ্জনের এই কর্মকান্ডে পুরসভার কোনও কর্মী জড়িত কিনা তা নিয়েও প্রশ্ন উঠছে নানা মহলে। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ এই ঘটনায় তৃণমূলের দিকেই সরাসরি অভিযোগের আঙুল তুলেছে।

অন্যদিকে কলকাতা পুরসভার প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম জানিয়েছেন, অভিযুক্তের সঙ্গে পুরসভার কোনও কর্মীর যোগসাজস রয়েছে কিনা তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। কেউ এই ঘটনায় যুক্ত থাকলে তাঁদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি।

   মোবাইলে আরও নিউজ আপডেট পেতে এইখানে ক্লিক করুন - Whatsapp

No comments