Page Nav

HIDE

Post/Page

Weather Location

Breaking !

latest

নাটকীয় প্রত্যাবর্তন, নন্দীগ্রামের কেন্দেমারী পঞ্চায়েতের প্রধান পদে জিতলেন বরখাস্ত হওয়া মানসুরা বেগম !

নিউজবাংলা ডেস্ক, পূর্ব মেদিনীপুর : আমফান ঝড়ে ক্ষতিপূরণ বিলির পর থেকেই গোটা রাজ্যের পাশাপাশি তৃণমূলের হেভিওয়েট মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর বিধানসভা কেন্দ্র নন্দীগ্রামেও ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। ত্রাণ বিলির নামে তৃণমূলের নেতা নেত্রীদের বিরুদ্ধে দেদার গরমিলের অভিযোগ ওঠে।

এই নিয়ে নন্দীগ্রামের একের পর এক গ্রামপঞ্চায়েত অফিসে বিজেপির নেতৃত্বে বিক্ষোভে সরব হন গ্রামবাসীরা। নন্দীগ্রাম বিডিও অফিসেও ব্যাপক বিক্ষোভ দেখানো হয়। এরপরেই নড়েচড়ে বসে তৃণমূল নেতৃত্বরা। নন্দীগ্রাম ব্লক তৃণমূল সভাপতি মেঘনাদ পালের নেতৃত্বে আম্ফান ত্রাণে দুর্নীতির বিরুদ্ধে দলীয় পর্যায়ে তদন্ত শুরু হয়।

এই তদন্তের ভিত্তিতে প্রায় ২০০ জনের একটি তালিকা প্রকাশ করা হয়। যার মধ্যে পঞ্চায়েত প্রধান, পঞ্চায়েত সদস্য, পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য সহ ব্লক ও পঞ্চায়েত স্তরের বহু তৃণমূলের নেতা কর্মীদের নামও ছিল। তাঁদের দ্রুত টাকা ফিরিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়ার পাশাপাশি একাধিক তৃণমূল নেতা কর্মীদের দল থেকে সাসপেন্ড করা হয়।

সেই তালিকাতেই নাম উঠে আসে নন্দীগ্রাম ১নং ব্লকের ৩নং কেন্দেমারী গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান মানসুরা বেগম'এর নামও। মানসুরা বেগমকে দল থেকে সাসপেন্ড করে দেওয়া হয়। যার জেরে তাঁর পঞ্চায়েত প্রধানের পদটিও চলে যায়। এরপর থেকেই এই পঞ্চায়েত এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা দেখা দেয়।

যদিও প্রথম থেকেই মানসুরা বেগম ও তাঁর স্বামী জমি আন্দোলনের প্রথম সারির নেতা সেক সাহাবুদ্দিনের দাবী ছিল, তাঁদের মিথ্যে অভিযোগে ফাঁসানো হয়েছে। দলেরই অপর গোষ্ঠী চক্রান্ত করে তাঁকে পদ থেকে সরাতে চেষ্টা করছে বলে দাবী করা হয়।

মঙ্গলবার সেই প্রধান পদে নির্বাচন ছিল। যাকে ঘিরে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। পঞ্চায়েত এলাকার ১ কিলোমিটার জুড়ে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়। পরিস্থিতি মোকাবিলায় এলাকায় মোতায়েন হয় বিশাল পুলিশ বাহিনী। হলদিয়ার মহকুমা পুলিশ আধিকারীক তন্ময় মুখার্জী নিজে ঘটনাস্থলে থেকে পরিস্থিতির মোকাবিলা করেন।

এদিন ভোটাভুটির শেষে সেই মানসুরা বেগমকেই পুনরায় প্রধান পদে নির্বাচন করা হয়। সেক সাহাবুদ্ধিন জানান, সাকিনা বিবিকে দল প্রধান করতে বলেছিল। কিন্তু সাকিনা বিবির ব্যক্তিগত সমস্যা থাকায় তিনি প্রধান পদে বসতে অস্বীকার করেন। এরপরেই দলের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হ্য। দল মানসুরা বিবিকে সাসপেন্ড করেছিল। দলের লোকেদের দিয়ে সার্ভে করা হয়। তিনি নির্দোষ প্রমাণ হতেই দল তাঁকে পুনরায় প্রধান করায় ছাড়পত্র দিয়েছে বলে সাহাবুদ্দিনবাবু জানিয়েছেন।

অন্যদিকে মানসুরা বিবি জানিয়েছেন, দল আমাকে সাসপেন্ড করেছিল। তবে আমার বিরুদ্ধে সমস্ত অভিযোগ মিথ্যে  প্রমাণিত হয়েছে। দলের নির্দেশে সব সদস্য আমাকে সমর্থন করেছে আজ। দলের তরফে সাসপেন্ড তুলে নেওয়া হয়েছে।

৩নং কেন্দেমারী অঞ্চলে মানসুরা বেগমকে প্রধান নির্বাচিত করা হল। আমাদের দলের যারা বিরোধী গোষ্ঠী ছিল তাঁরাই পঞ্চায়েত প্রধানের নামে অপপ্রচার চালিয়েছিল। প্রধানকে অপসারণের চেষ্টা চালিয়েছিল। তবে আজ সমস্ত সদস্যের সমর্থনে মানসুরা বেগমকে পুনরায় ক্ষমতায় আনা হয়েছে।

অপরদিকে নন্দীগ্রাম 1 নম্বর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস এর সভাপতি মেঘনাথ পাল এর দাবি দলীয় নিয়ম না মেনে এই প্রধান নির্বাচন হয়েছে। আমরা আগামীকাল এই নিয়ে কোর কমিটি বৈঠক-এ বসবে। 

#newzbangla #BengaliNews #AllIndiaTrinamoolCongress #নিউজবাংলা #Newsbangla #BengalUpdate #Nandigram #KendemariGramPanchayet

No comments