Page Nav

HIDE

Post/Page

Weather Location

Breaking !

latest

দুই মেরুতে আদালত ও স্কুল শিক্ষা দফতর, বেসরকারি স্কুলের বকেয়া ফি ঘিরে দোলাচলে অভিভাবকরা !

নিউজ বাংলা, কলকাতা : করোনা আবহে এখন অনলাইন ক্লাস পড়ুয়াদের একমাত্র ভরসা। স্কুল বন্ধ তাই অগত্যা এই পথেই এগোচ্ছে পড়াশুনা। তার কারণে স্কুলের ফি দেওয়া থেকে রেহাই মেলেনি অভিভাবকদের। বেসরকারি স্কুল গুলির বিরুদ্ধে অভিযোগ টিউশন ফি ছাড…

নিউজ বাংলা, কলকাতা : করোনা আবহে এখন অনলাইন ক্লাস পড়ুয়াদের একমাত্র ভরসা। স্কুল বন্ধ তাই অগত্যা এই পথেই এগোচ্ছে পড়াশুনা। তার কারণে স্কুলের ফি দেওয়া থেকে রেহাই মেলেনি অভিভাবকদের।

বেসরকারি স্কুল গুলির বিরুদ্ধে অভিযোগ টিউশন ফি ছাড়া অন্যান্য সমস্ত ফি চাপ দিয়ে অভিভাবকদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে। সেই বিষয়কে গুরুত্ব দিয়ে অবিভাবকদের পাশে দাঁড়ালো রাজ্য সরকার।

অন্যদিকে এই টিউশন ফি ছাড়া বাকি ফি মকুবের দাবিতে সরব অভিভাবকদের পক্ষে জনস্বার্থ মামলা হয়। যার রায় স্কুলের পক্ষেই দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট। কার্যত আদালতের এই সিদ্ধান্তে খুশি নন অভিভাবকরা।

অভিভাবকদের দাবী ছিল, এই সময়ে টিউশন ফি ছাড়া স্কুলের গাড়ির ফি, লাইব্রেরি ফি সহ বাকি যে খাতে টাকা নেওয়া হয় তা মকুব করুক স্কুলগুলি। বর্তমান পরিস্থিতিতে ফি দেওয়ার প্রতিবাদে রাজ্যের একাধিক নামজাদা স্কুলগুলিতে বারবার বিক্ষোভ দেখিয়েছেন অভিভাবকরা।

কিন্তু সেই বিষয়কে কোনোভাবেই মান্যতা দেয়নি স্কুলগুলি। যদিও রাজ্যের সমস্ত স্কুলগুলিকে ফি নেওয়ার বিষয়ে একাধিকবার মানবিক হওয়ার কথা বলেছে রাজ্য সরকার, তাতেও কোন লাভ হয়নি।

রাজ্যের স্কুল শিক্ষা দপ্তরের প্রকাশিত এক নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, স্কুলের পক্ষ থেকে যতটুকু পরিষেবা পড়ুয়াদের দেওয়া হবে ঠিক ততটুকুই ফি নেওয়া যাবে। বাড়তি কোনো ফি এর জন্য চাপ দেওয়া যাবে না পড়ুয়াদের। বাদ দেওয়া যাবে না অনলাইন ক্লাস থেকেও। এক্ষেত্রে কোনো কারণে পড়ুয়াদের ফি জমা দিতে দেরি হলে বাড়তি চাপ বা জরিমানা না চাপিয়ে সেক্ষেত্রে স্কুল গুলিকে মানবিক হতে হবে।

করোনা পরিস্থিতিতে শিক্ষা ব্যবস্থা সংক্রান্ত কোন অভিযোগ এবং পরামর্শ নেওয়ার থাকলে তা আগামী ২৭ শে জুলাইয়ের মধ্যে স্কুল শিক্ষা দপ্তর কমিশনের কাছে জানাতে হবে। তবে এক্ষেত্রে কোনরূপ নির্দেশিকা অমান্য করলে স্কুলগুলির বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেবে রাজ্য স্কুল শিক্ষা দপ্তর।

#newzbangla #bengalinews #নিউজবাংলা #schooleducation #bengalnews #newsupdate

অন্যদিকে, বাকি ফি মকুব করার আর্জিতে হওয়া জনস্বার্থ মামলা খারিজ করেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় এবং মৌসুমি ভট্টাচার্যের ডিভিশন বেঞ্চ। আদালত জানায়, ৩১শে জুলাই পর্যন্ত বাকি থাকা ফি এর ন্যূনতম ৮০% আগামী ১৫ আগস্টের মধ্যে স্কুলে জমা দিতে হবে।

একদিকে স্কুলের পক্ষে রায় আদালতের আবার অন্যদিকে অভিভাবকদের পাশেই দাঁড়িয়েছে স্কুল শিক্ষা দপ্তর। তাই ফি জমা সংক্রান্ত বিষয়ে স্পষ্ট ধারণা না পাওয়ায় ধন্দ্বে অভিভাবকরা।

আমাদের প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মন্তব্য জানান নীচের কমেন্ট বক্স-এ। আপনার মূল্যবান মন্তব্য ও পরামর্শ আমাদের চলার পথ সমৃদ্ধ করবে।


No comments