Page Nav

HIDE

Post/Page

Weather Location

Breaking !

latest

সাফল্যের আরও এক ধাপ, রাশিয়ায় মানব শরীরে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের ফলাফলে গবেষকরা উচ্ছ্বসিত !

নিউজবাংলা ডেস্ক : করোনা ভাইরাস নির্মূল করতে বিশ্বজুড়ে শুরু হয়েছে তোড়জোড়। ইতিমধ্যে একাধিক দেশে মানুষের শরীরে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের প্রয়োগ হয়েছে। এর মধ্যে রাশিয়ায় ভ্যাকসিনের প্রয়োগের ফলাফল নিয়ে গবেষকরা যথেষ্ট আশাবাদী বলে জানা গেছে।বু…

নিউজবাংলা ডেস্ক : করোনা ভাইরাস নির্মূল করতে বিশ্বজুড়ে শুরু হয়েছে তোড়জোড়। ইতিমধ্যে একাধিক দেশে মানুষের শরীরে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের প্রয়োগ হয়েছে। এর মধ্যে রাশিয়ায় ভ্যাকসিনের প্রয়োগের ফলাফল নিয়ে গবেষকরা যথেষ্ট আশাবাদী বলে জানা গেছে।

বুধবার রাশিয়ান বিজ্ঞানীরা করোনভাইরাস ভ্যাকসিনের প্রথম ক্লিনিকাল পরীক্ষার ফলাফলের প্রশংসা করে বলেছেন যে এটি নিরাপদ প্রমাণিত হয়েছে এবং স্বেচ্ছাসেবীরা প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করেছেন।

এবার ভ্যাকসিন দ্বারা উত্পাদিত অন্যান্য প্রতিক্রিয়ার শক্তি এবং কতক্ষণ এই সুরক্ষা চলবে তা নির্ধারণের লক্ষ্যে বৃহত্তর স্কেল ট্রায়াল, আগস্টের মাঝামাঝি সময়ে রাশিয়ায় শুরু হবে বলে আশা করা হচ্ছে। যদিও মুখোশ না পরে জনাকীর্ণ একটি ঘরে কথা বলতে গিয়ে সেকেনভ বিশ্ববিদ্যালয়ে এক মাস ধরে পর্যবেক্ষণ করা ১৮ জন স্বেচ্ছাসেবীর মধ্যে তিনজন জানিয়েছেন যে তাদের সবার কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রয়েছে।

ইতিমধ্যে মহামারীটি বন্ধ করার চেষ্টা করার জন্য বিশ্বজুড়ে প্রায় ১০০টিরও বেশি সম্ভাব্য ভ্যাকসিন তৈরি ও পরীক্ষা করা হচ্ছে। এদের মধ্যে ১৯টি ভ্যাকসিনের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ অনেকটাই এগিয়েছে। এবং এই মুহূর্তে মাত্র দুটি চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে - একটি চীনের সিনোফর্ম এবং অন্যটি অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাস্ট্রাজেনেকা।

সেকেনভ বিশ্ববিদ্যালয়ের এক বিভাগীয় পরিচালক এলেনা স্মোলারচুক জানিয়েছেন, "আমরা প্রাথমিকভাবে সুরক্ষার জন্য পরীক্ষা করছিলাম। এই ভ্যাকসিনের প্রয়োগের পর কেবল তার প্রাথমিক ফলাফলের বিষয়ে আমরা কথা বলতে পারি। এগুলি একটি ভাল, ইতিবাচক প্রবণতা, অ-নির্দিষ্ট প্রতিরোধ ক্ষমতা জোরদার করে" জানিয়েছেন তিনি।

রাশিয়ান গবেষকরা জানিয়েছেন, ভ্যাকসিনের প্রয়োগের ফলাফল জানতে মাসখানেক ওই স্বেচ্ছাসেবীদের পর্যবেক্ষণ করা হবে। তারপরেই এই ভ্যাকসিনের প্রতিরোধের প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে সিদ্ধান্ত জানাবে গামালিয়া ইনস্টিটিউট, যারা এটি তৈরি করেছে।

এরপরে রাশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ভ্যাকসিনটি রেজিষ্ট্রেশন করবে এবং আরও বৃহত্তর পরীক্ষা শুরু করবে কিনা তা সিদ্ধান্ত নেবে বলে জানা গেছে। সূত্রের খবর, এই ভ্যাকসিনটি দুটি ডোজে পরিচালিত হয় এবং মানব অ্যাডিনোভাইরাস দুটি সিরোটাইপ সমন্বিত থাকে, প্রত্যেকটি নতুন করোনভাইরাসটির একটি এস-অ্যান্টিজেন বহন করে, যা মানব কোষে প্রবেশ করে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করে বলে গবেষকদের দাবী।

সূত্রের খবর, রাশিয়ান এই ভ্যাকসিনটি প্রথম ল্যাবে পরীক্ষা করা হয়েছিল এবং তারপরে গত ১৮ জুন স্বেচ্ছাসেবীদের ওপর তার প্রয়োগ করা হয়। সেকেনভ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাদিম তারাসভ বলেছেন, "ভ্যাকসিনের জন্য ব্যবহৃত প্ল্যাটফর্মটি দুই দশক ধরে রাশিয়ান বিজ্ঞানীরা বিকাশ করেছিলেন এবং অতীতে ইবোলার বিরুদ্ধে তিনটি ভ্যাকসিনের জন্য বেশ কয়েকটি ভ্যাকসিনের ভিত্তি তৈরি করেছিলেন।"

প্রতিরক্ষা মন্ত্রক সূত্রে খবর, যে ২০টি স্বেচ্ছাসেবীর ওপর এই ভ্যাকসিনের সমান্তরাল পরীক্ষা করা হয়েছিল বুধবার এই দলটিকে ছাড় দেওয়া হয়েছে। প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের শেয়ার করা একটি ভিডিওতে সৈনিক ও স্বেচ্ছাসেবক ইউরি দাবী করেছেন, “এটি আর ভীতিজনক নয়"।

কেমন লাগছে আমাদের প্রতিবেদন, আপনার মন্তব্য জানান নীচের কমেন্ট বক্স-এ। আপনার মূল্যবান মন্তব্য ও পরামর্শ আমাদের চলার পথ সমৃদ্ধ করবে। 

তথ্যসূত্র-ডন



No comments