Page Nav

HIDE

Post/Page

Weather Location

Breaking !

latest

সকালেই খোশমেজাজে বাবার সঙ্গে ফোনে কথা, দুপুরে খবর এল শহীদ হয়েছে ছেলে !

পার্থ খাঁড়া, নিউজবাংলা ডেস্ক :শুক্রবার সকালে কাশ্মীরের অনন্তনাগে কর্মরত ছেলেকে ফোন করেছিলেন বাবা। বাড়ির কিছু জিনিস কেনাকাটার জন্য ছেলের সঙ্গে কথা হয়। সেই সময় বেশ খোশ মেজাজেই বাবার সঙ্গে কথা বলেন সিআরপিএফ জওয়ান শ্যামল দে। তখন কি আ…


পার্থ খাঁড়া, নিউজবাংলা ডেস্ক : শুক্রবার সকালে কাশ্মীরের অনন্তনাগে কর্মরত ছেলেকে ফোন করেছিলেন বাবা। বাড়ির কিছু জিনিস কেনাকাটার জন্য ছেলের সঙ্গে কথা হয়। সেই সময় বেশ খোশ মেজাজেই বাবার সঙ্গে কথা বলেন সিআরপিএফ জওয়ান শ্যামল দে।

তখন কি আর বাবা বাদল দে অথবা তাঁর পরিবারের কেউ ভাবতে পেরেছিলেন, এই কথাই হতে চলেছে শেষ কথা। এদিন দুপুর দেড়টা নাগাদ সিআরপিএফ অফিস থেকে যখন ফোন করে জানানো হয় শ্যামল আর নেই। জঙ্গীদের গুলিতে শহীদ হয়েছে সে, তখন কারুরই মুখ থেকে কথা বেরচ্ছিল না।

আরও পড়ুন -কাশ্মীরে জঙ্গীদের অতর্কিত হামলায় শহীদ পশ্চিম মেদিনীপুরের সবং থানা এলাকার বীর বাঙালি সন্তান !

প্রাণোচ্ছল ছেলেটা হাসতে হাসতেই দেশের জন্য প্রাণ দিয়ে দিল। শ্যামলবাবুর পরিবার সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫ সালে সেনাবাহিনীতে যোগ দেন তিনি। বর্তমানে তিনি  সিআরপিএফ এর ৯০নং ব্যাটেলিয়নের অধীনে কাশ্মীরের অনন্তনাগে  কর্মরত ছিলেন।

গত ডিসেম্বরে শেষবার বাড়ি এসেছিল সে। ফিরে গিয়ে নিজের ডিউটিতে যোগ দেন তিনি। এবার তিনি বাড়ি ফিরবেন ঠিকই, তবে এটাই হবে তাঁর শেষ ফেরা। ছেলের মৃত্যুর খবর পেয়ে শোকে মূহ্যমান তাঁর মা। আজই যে ছেলের সঙ্গে কথা হল সে আর নেই একথা বিশ্বাস করতে পারছেন না কেউই।

মৃত জওয়ানের বাবা-মা থাকেন পুরানো ভাঙাচোরা বাড়িতে। পাশেই তৈরি হচ্ছে নতুন দ্বোতলা পাকা বাড়ি। সেই বাড়ি নির্মাণের জন্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনার জন্যই ছেলের সঙ্গে শেষবার কথা হয় বাবার। নতুন বাড়িতে ছেলের আর গৃহপ্রবেশ হবে না, ভেবেই আকুল তাঁর বাবা মা।

ঘটনার খবর পেয়ে শ্যামলের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে ছুটে যান রাজ্যসভার সাংসদ ডা. মানসরঞ্জন ভূইঞ্যাঁ, এলাকার বিধায়ক গীতা ভূইঞ্যাঁ। শহীদ পরিবারের জন্য সব রকম সাহায্যের আশ্বাস দিয়েছেন তাঁরা।



No comments