Page Nav

HIDE

Post/Page

Weather Location

Breaking !

latest

ভারতকে জল দেওয়া বন্ধের বিষয়ে মুখ খুলল ভুটান !

নিউজ বাংলা ডেস্ক : আসামের কৃষকদের সেচের জল আটকানো নিয়ে সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদকে ভিত্তিহীন বলে জানিয়েছে ভুটান। ভুটান সরকারের দাবী, এমন সংবাদ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক খারাপ করতে ইচ্ছাকৃতভাবে এমন সংবাদ প্রকাশ ক…


নিউজ বাংলা ডেস্ক : আসামের কৃষকদের সেচের জল আটকানো নিয়ে সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদকে ভিত্তিহীন বলে জানিয়েছে ভুটান। ভুটান সরকারের দাবী, এমন সংবাদ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক খারাপ করতে ইচ্ছাকৃতভাবে এমন সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে।

শুক্রবার ভুটান বিদেশমন্ত্রক থেকে  এক বিবৃতে জানানো হয়েছে, গত ২৪ জুন ভারতীয় একাধিক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে আসামের কৃষকদের সেচের জল ভুটান দিচ্ছেনা। এতে সমস্যায় পড়েছেন বাকসা ও উদালগুড়ির কৃষকরা। এটা অত্যন্ত ভয়াবহ অভিযোগ।

তাই বিদেশমন্ত্রক সূত্রে স্পষ্ট জানানো হয় এই ধরনের সংবাদ ভিত্তিহীন। জল বন্ধ করার মতো কোনো কারণ নেই ভুটানের।

আরও খবর -ভারতকে একঘরে করতে এবার জল দেওয়া বন্ধ করল ভুটান !

আরও বলা হয়, উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে ভুটান ও আসামের বন্ধুত্বপূর্ণ সহাবস্থানে ফাটল ধরানোর চেষ্টায় এই খবর ছড়ানো হয়েছে।

এরআগেই আসামের মুখ্যসচিব কুমার সঞ্জয় কৃষ্ণা টুইট করে বলেন, এই প্রতিবেদন সঠিক নয়। প্রাকৃতিক কারণে জল বন্ধ হয়েছে।

ভুটানের প্রকাশ করা ওই বিবৃতিতে আরও বলা হয়, কয়েক দশক ধরে বাকসা ও উদালগুড়ি আমাদের জলে সেচের কাজ করছে। আগামী দিনেও সেই জল পাওয়াতে কোনো সমস্যা ভুটানের তরফে হবে না।

সম্প্রতি ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমে বলা হয়, হঠাৎ করেই ভারতে জল আটকে দিয়েছে ভুটান। এতে আসামের সীমান্তবর্তী এলাকার ২৫টি গ্রামের হাজার হাজার চাষী জল সংকটে পড়েছেন। জল না পাওয়ায় অঞ্চলটিতে চাষাবাদের ক্ষেত্রে ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

করোনা মহামারির কারণে ভুটান তাদের সীমান্ত সম্পূর্ণ বন্ধ করে দিয়েছে। সীমান্ত দিয়ে ভারতীয় কোনো নাগরিককে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। ভারতীয় চাষীদের ভুটানের উদ্ভূত সেচ ক্যানেল ব্যবহার করতে দেওয়া হবে না।

কার্যত এই বিষয় যে ভুয়ো তা বিবৃতির মাধ্যমেই প্রকাশ করলেন ভুটান সরকার। প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে বন্ধ হওয়া জল চাষের কাজে পাচ্ছিলেন না চাষীরা। তাই এই নিয়ে ভারত আর ভুটানের মধ্যে সম্পর্কে কোনো নেতিবাচক প্রভাব পড়ুক চাইছেন না দুই দেশের সরকার।


No comments