Page Nav

HIDE

Post/Page

Weather Location

Breaking !

latest

ভর সন্ধ্যেয় নৃশংস হৃদয় বিদারক রক্তাক্ত ঘটনার সাক্ষী কলকাতা !

নিউজ বাংলা, কলকাতা : সেলফিস জায়েন্ট-এর গল্প বইয়ের পাতায় অনেক পড়েছি আমরা, তবে এমন বিক্রীত মানসিকতার মানুষ যে সত্যিই থাকতে পারে তা চাক্ষুষ করল কলকাতার বড়বাজারের নন্দরাম মার্কেটের পার্শ্বস্থ এলাকার বাসিন্দারা।
রবিবার সন্ধ্যে নাগাদ ১১…


নিউজ বাংলা, কলকাতা : সেলফিস জায়েন্ট-এর গল্প বইয়ের পাতায় অনেক পড়েছি আমরা, তবে এমন বিক্রীত মানসিকতার মানুষ যে সত্যিই থাকতে পারে তা চাক্ষুষ করল কলকাতার বড়বাজারের নন্দরাম মার্কেটের পার্শ্বস্থ এলাকার বাসিন্দারা।


রবিবার সন্ধ্যে নাগাদ ১১৩ নম্বর নেতাজি সুভাষ রোডের পাঁচতলার ব্যালকনি থেকে ২ খুদে শিশুকে ছুঁড়ে ফেলার অভিযোগ উঠল প্রতিবেশী এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। ওই শিশুরা ব্যালকনিতে খেলাধুলোর পাশাপাশি শোরগোল করাতেই নাকি ওই ব্যক্তি এমন পৈশাচিক কাজ করেছেন। নিজের রাগ সংবরণ করতে না পেরে দুই শিশুকেই ব্যালকনি থেকে ছুঁড়ে ফেলেন শিবকুমার যাদব নামের ওই ব্যক্তি, এমনটাই অভিযোগ শিশুগুলির পরিবারের।

 

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, এদিন সন্ধ্যে ৬টা নাগাদ আচমকাই কিছু পড়ে যাওয়ার আওয়াজ পান স্থানীয়রা। তাঁরা ঘটনাটি খতিয়ে দেখতে গিয়েই হতবাক হয়ে যান। দেখেন রাস্তায় রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে দুই শিশু। তাঁদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে এক জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে। মৃত শিশুর বয়স ২ বছর। অন্যদিকে আহত শিশুটির বয়স প্রায় ৬ বছর।

 

উল্লেখ্য, নন্দরাম মার্কেটে বুধন সাহু এবং শিবকুমার যাদব পাঁচতলা বাড়ির দুটি ঘরে পাশাপাশি থাকতেন। বুধনের ছেলে শিবম (২) ও নাতি বিশাল (৬) এদিন ওই ব্যালকনিতে খেলছিল। আচমকাই শিবকুমার বাচ্চা দুটিকে ছুঁড়ে ফেললে রাস্তায় পড়ে রক্তক্ষরণ হয়ে মারা যায় শিবম।

 

বিশাল এর মায়ের নাম রেখা দেবী এবং শিভম এর মার নাম সবিতা দেবি। রেখা দেবীর অভিযোগ, অভিযুক্ত শিব কুমার গুপ্তা কারোর সঙ্গেই মেলামেশা করতেন না। প্রতিবেশীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করতেন। প্রায়ই প্রতিবেশীদের সঙ্গে তার বছর সহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে।

 

প্রতিবেশীদের অভিযোগ, নিজের স্ত্রীর সঙ্গেও অত্যন্ত দুর্ব্যবহার করতেন শিবকুমার গুপ্তা। কয়েক বছর আগে তার স্ত্রী জলে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেন বলে দাবি প্রতিবেশীদের। সেই ঘটনার পর থেকে কার্যত ঘরবন্দি হয়ে থাকতেন শিব কুমার গুপ্ত।

 

বড়বাজার থানার তদন্তকারী আধিকারিকেরা এবং কলকাতা গোয়েন্দা পুলিশের হোমিসাইড শাখার আধিকারিকরা শিব কুমার গুপ্ত কে জেরা করছেন। তারা জানার চেষ্টা করছেন, কেন এদরনের অপরাধ করলেন শিব কুমার।

No comments