Page Nav

HIDE

Post/Page

Weather Location

Breaking !

latest

সংকট মুহুর্ত, ভারত ছাড়তে পারে এয়ার এশিয়া এয়ারলাইন্স !

নিউজ বাংলা ডেস্ক : করোনার জেরে বন্ধ একাধিক এয়ারলাইন্স পরিষেবা। এহেনপরিস্থিতি কাটিয়ে কবে আকাশে উড়বে উড়ান তা নিয়ে সন্দেহ দেখা দিয়েছে। সংস্থার সিইও টনি ফার্নান্ডিজ একটি সাক্ষাৎকরে সেইরকম মত প্রকাশ করেছেন। ইতিমধ্যেই যাত্রী সংখ্যা দেখ…

নিউজ বাংলা ডেস্ক : করোনার জেরে বন্ধ একাধিক এয়ারলাইন্স পরিষেবা। এহেন  পরিস্থিতি কাটিয়ে কবে আকাশে উড়বে উড়ান তা নিয়ে সন্দেহ দেখা দিয়েছে। সংস্থার সিইও টনি ফার্নান্ডিজ একটি সাক্ষাৎকরে সেইরকম মত প্রকাশ করেছেন। ইতিমধ্যেই যাত্রী সংখ্যা দেখে চিন্তিত এয়ার এশিয়া সংস্থা। করোনা পরবর্তীতে কোন অবস্থায় লভ্যাংশ উঠবে সেই ভেবেই একপ্রকার এই সিদ্ধান্ত বলে জানা গিয়েছে।

এয়ার এশিয়ার মত কম খরচের এয়ারলাইন্স সংস্থা ভারত থেকে ব্যবসা গুটিয়ে নিলে শিল্পের প্রচুর ক্ষতি হবে। যদিও ভারতে এই সংস্থা হাত ধরেছিল টাটা গোষ্ঠীর সাথে। টাটার তরফে এবিষয়ে কোনো মতামত না পাওয়া গেলেও এই ঘটনা যে সত্যিই হতে চলেছে তা নিশ্চিত করেছেন শিল্পমহলের একাংশ।

করোনার কারণে এমনিতেই প্রায় চারমাস উড়ান বন্ধ থাকায় প্রচুর ক্ষতির মুখে একাধিক এয়ারলাইন্স সংস্থা। ক্ষতির অঙ্ক কিছুটা সামাল দিতে কোপ পড়েছে একাধিক কেবিন ক্রু এবং পাইলটের ওপর। একপ্রকার বাধ্য হয়েই কিছু সংখ্যক কর্মীদের ছাঁটাই করতে বাধ্য হয়েছে এয়ারলাইন্সগুলি।

করোনা পরবর্তীতে টিকিট বিক্রি নিয়ে যে সংশয় দেখা দিয়েছে তাতে লাভের মুখ আগামী এক বছর দেখতে পাবে না সংস্থাগুলি। সেই কথা ভেবেই এয়ার এশিয়ার ভারতে পরিষেবা বন্ধের কথায় চিন্তায় পড়েছেন পর্যটন কেন্দ্রের সাথে যুক্ত ব্যবসায়ীরা। তাদের বক্তব্য, এয়ার এশিয়ার মত বিমান প্রায় সকলের ক্ষেত্রেই নিত্য প্রয়োজনের মাধ্যম ছিল। কম খরচে যে পরিষেবা তাতেই এর চাহিদা ছিল। কিন্তু এই অবস্থার সম্মুখীন হলে এয়ার এশিয়ার মত অনেক এয়ারলাইন্স তাদের ব্যবসা বন্ধ করতে পারে বলেও মনে করছেন তারা।

উল্লেখ্য, সংস্থার সিইও ফার্নান্ডিজ, ভারত এবং জাপান থেকে এই ব্যবসা গুটিয়ে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশগুলিতে ব্যবসা চালানোর পরিকল্পনা নিয়েছেন। তবে করোনা আবহের পর কম খরচের এই এয়ারলাইন্স বন্ধ হয় কিনা বা অন্য কোনো পরিকল্পনা নিতে পারে কিনা সেই বিষয়ের দিকে তাকিয়ে শিল্পমহল।


No comments