Page Nav

HIDE

Post/Page

Weather Location

Breaking !

latest

Breaking ! অগ্নিগর্ভ মায়াচর, জেলা বিভাজনের বিরুদ্ধে পথে নামল হাজার হাজার মানুষ



নিউজবাংলা ডেস্ক : দিন কয়েক আগে মায়াচর থেকে অমৃতবেড়িয়া আসার পথে যাত্রীবাহী নৌকো উল্টে গিয়েছিল রূপনারায়ণ নদীতে। তারপরেই পরিবহন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী ঘোষণা করেন, মায়াচর দ্বীপের সংযুক্তি হবে হাওড়া জেলার সঙ্গে। আর এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই গোটা মায়াচর দ্বীপ জুড়ে ভয়াবহ হয়ে উঠেছে পরিস্থিতি।



প্রসঙ্গতঃ রূপনারায়ণ নদীর এক পারে পূর্ব মেদিনীপুর আর অন্যপারে হাওড়া জেলা রয়েছে। কিন্তু এই হাওড়া জেলার সংলগ্ন একটি ছোট্ট দ্বীপ মায়াচর জুড়ে রয়েছে পূর্ব মেদিনীপুরের অংশ হিসেবেই। সেই ব্রিটিশ আমল থেকে এই দ্বীপে বসবাস গড়ে তুলেছেন পূর্ব মেদিনীপুরের অমৃতবেড়িয়া, সহ আশেপাশের এলাকার বাসিন্দারা। তবে এখন হাওড়া জেলার কিছু মানুষও এখানে বসবাস করছেন।

আর দ্বীপটি একটি খালের মাধ্যমে হাওড়া জেলা থেকে বিভক্ত রয়েছে। এই দ্বীপের কোনও মানুষকে যে কোনও প্রশাসনিক বা চিকিৎসার সুবিধে নিতে নদী পেরিয়ে অমৃতবেড়িয়ার ঘাটে আসতে হয়। তারপর তাঁরা হলদিয়া, মহিষাদল বা তমলুকে তাঁদের কাজকর্ম মেটান। এই বিষয়টিকে মাথায় রেখেই পরিবহন মন্ত্রী মায়াচর দ্বীপকে হাওড়া জেলার সঙ্গে জুড়ে দিতে চেয়েছেন।



কিন্তু এলাকার বাসিন্দাদের যুক্তি, তাঁদের অধিকাংশের জমি সম্পত্তি বা পরিবারের একটা বড় অংশ পূর্ব মেদিনীপুরে রয়েছে। তাই পূর্ব মেদিনীপুরের সঙ্গে থাকতেই তাঁরা স্বচ্ছন্দ বোধ করেন। এই এলাকার মানুষদের সঙ্গে কোনও আলোচনা না করেই দ্বীপটিকে হাওড়ার সঙ্গে জুড়ে দেওয়ার উদ্যোগ ঘিরে তাই ব্যাপক উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে গোটা এলাকা।

দেখুন আন্দোলনের এক্সক্লুসিভ ভিডিও-


মঙ্গলবার এই ক্ষোভেরই বহিঃপ্রকাশ দেখা গেল মায়াচর দ্বীপে। এদিন দ্বীপের প্রায় সমস্ত অধিবাসীই একজোট হয়ে বিক্ষোভে সামিল হয়েছেন। হাজারে হাজারে মহিলা, পুরুষ, শিশু, কিশোর হাতে ব্যানার ও প্ল্যাকার্ড নিয়ে পথে নেমে এর বিরোধীতায় সামিল হয়েছেন। আর এই বিক্ষোভে অংশ নেন কংগ্রেসের রাজ্য নেতৃত্বরাও। 




কোনও ভাবেই মায়াচর দ্বীপ যাতে পূর্ব মেদিনীপুর থেকে বিচ্ছিন্ন না হয়ে তা নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে বলে জানিয়েছেন তাঁরা। তাঁদের মতামতকে গুরুত্ব না দিলে গোটা দ্বীপের মানুষ চূড়ান্ত আন্দোলনে নামতে পিছপা হবেন না বলে জানিয়েছেন আন্দোলনকারীরা।  




No comments