Page Nav

HIDE

Post/Page

Weather Location

Breaking !

latest

ডিএ, পে-কমিশন ইস্যুতে কলকাতা পুরসভার সামনে বিক্ষোভে অনড় যৌথ সংগ্রামী মঞ্চ !

https://www.newzbangla.com/


নিউজবাংলা ডেস্ক, কলকাতা : সরকারী কর্মীদের ডিএ, পে কমিশন নিয়ে বঞ্চনার পাশাপাশি ৫ দফা দাবীতে আগামী ১২ সেপ্টেম্বর কলকাতা পুরসভা'র সামনে অনশন ও ধর্নায় বসার কথা ঘোষণা করেছে সরকারী-আধা সরকারী কর্মচারী, শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মীদের সংগঠন নিয়ে গড়ে ওঠা যৌথ সংগ্রামী মঞ্চ।



কিন্তু আশ্চর্যজনক ভাবে এই অনশন কর্মসূচীর অনুমোদন বাতিল করে দিয়েছে লালবাজার। যৌথ সংগ্রামী মঞ্চের যুগ্ম আহ্বায়ক ফটিক দে ও দেবাশীষ শীলের দাবী, পুলিশ কোনও কারন না দেখিয়েই তাঁদের অনুমোদন বাতিল করে দিয়েছে। এবার পুনরায় অনশন বাতিল করে অবস্থান বিক্ষোভের জন্য পুলিশের অনুমোদন চাওয়া হয়।

তবে তাও বাতিল করে দেওয়া হয়েছে পুলিশের তরফ থেকে। যদিও মাস খানেই আগেই তাঁরা একদিনের বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন করেছিলেন ওই জায়গাতেই। সেদিন কিন্তু তাঁদের পুলিশ অনুমোদন দিয়েছিল। 

তাহলে কেন এবার অনুমোদন নয়? দেবাশীষবাবুর দাবী, এবারের অনশন ধর্না অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অর্থ বহন করছে। কারন, ১৩ সেপ্টেম্বর সরকারী কর্মীদের নিয়ে বৈঠকে পে কমিশন নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা করতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।



তার আগের দিনই ডিএ ও পে কমিশন ইস্যুতে যৌথ সংগ্রামী মঞ্চের বিক্ষোভ রাজ্য সরকারকে যথেষ্ট চাপে ফেলে দিতে পারে। কারন, এই দুটি দাবীতে একটানা আন্দোলন ও আইনী লড়াইয়ের সাক্ষী রয়েছেন দেবাশীষবাবু সহ অন্যরাও।

ডিএ সরকারী কর্মীদের ন্যাহ্য অধিকারের দাবী জানাতে গিয়ে দেবাশীষবাবুদের মতো আন্দোলনকারীদের "ঘেউ ঘেউ" শুনতে হয়েছে। তাই মুখ্যমন্ত্রী আগামী ১৩ তারিখের বৈঠকে যাতে পে কমিশন ও ডিএ বিষয়ে ন্যাহ্য দাবী মেনে নেন তা নিশ্চিত করতেই ১২ তারিখের ধর্না ও অনশনের কর্মসূচী নিয়েছে যৌথ সংগ্রামী মঞ্চ।




কিন্তু অনশন ও বিক্ষোভের অনুমোদন বাতিল করার ঘটনাকে মুখ্যমন্ত্রীর অসহিষ্ণুতা বলে কটাক্ষ করেছেন যৌথ সংগ্রামী মঞ্চের যুগ্ম আহ্বায়ক ফটিক দে। তাঁর দাবী, ১২ সেপ্টেম্বর তাঁদের অনশনের অনুমোদন না দেওয়া হলেও অবস্থান বিক্ষোভের অনুমোদন পুলিশকে দিতে হবে।

তা না হলে বিনা অনুমতিতেই তাঁরা কলকাতা পুরসভার সামনে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ দেখাবেন বলেই দাবী জানিয়েছেন তাঁরা। এই বিক্ষোভ যদি পুলিশ দিয়ে গায়ের জোরে ঠেকাতে চেষ্টা করা হয় তাহলে আগামী দিনে সমস্ত সরকারী কর্মচারীরাই সরকার থেকে মুখ ফিরিয়ে নেবেন বলে জানিয়েছেন তাঁরা। 




No comments