Page Nav

HIDE

Post/Page

Weather Location

Breaking !

latest

"প্রাণ যায় যাক, অনশনমঞ্চ ছেড়ে কোথাও যাচ্ছি না" জানিয়ে দিলেন ১৪জন অনশনকারী প্রাথমিক শিক্ষক !



নিউজবাংলা ডেস্ক : এক্কেবারে একরোখা হয়ে গিয়েছেন উস্থিয়ানরা। প্রাণের বিনিময়ে দাবী আদায়ে বদ্ধপরিকর টানা ১০দিন ধরে অনশনরত প্রাথমিক শিক্ষক শিক্ষিকারা। সোমবার সন্ধ্যে নাগাদ মেডিক্যাল টিমের চিকিৎসকরা হুঁশিয়ারি দিয়ে জানিয়েছিলেন, জল বইছে বিপদ সীমার ওপরে। এখনই ১৪ অনশনকারীর চিকিৎসা শুরু না হলে ঘটতে পারে বড়সড় বিপদ।



চিকিৎসকদের এই সাবধানবানী শুনে উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারী টিচার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশানের কর্মকর্তারা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, আগামী কাল সকাল ৮টায় ১৪ অনশনকারীকেই হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হবে। কারন, তাঁদের ইউরিনে মিলেছে বিপজ্জনক কিটনবডি। পরিবর্তে অন্য ১৪ জন শিক্ষক শিক্ষিকা রিলে অনশনে বসে পড়বেন।



কিন্তু এই ঘোষণার মাত্র কয়েক মিনিট বাদেই বেঁকে বসেছেন ১৪ আন্দোলনকারী। যাদের মধ্যে প্রমূখ রয়েছেন উস্থির রাজ্য সম্পাদিকা পৃথা বিশ্বাস। তাঁরও অবস্থা আশংকাজনক। কিন্তু তিনি সহ অন্যরা নাছোড়বান্দা। অনশন মঞ্চ ত্যাগ করে তাঁরা কোথাও যাবেন না। "প্রাণ গেলে এখানেই যাক" এমনটাই জানিয়ে দিয়েছেন তাঁরা।




তাই রিলে অনশন না করে আগামী কাল সকাল থেকে নতুন করে বেশ কয়েকজন অনশনে সামিল হচ্ছেন বলে জানা গেছে। যদিও যাদের স্বাস্থ্যের চূড়ান্ত অবনতি হয়েছে সেই ১৪ অনশনকারীর চিকিৎসার কি ব্যবস্থা নেওয়া হবে সে বিষয়ে যথেষ্ট দুশ্চিন্তা বাড়ছে সকলেরই। এই পরিস্থিতিতে আন্দোলন কোন দিকে মোড় নেয় সেটাই এখন দেখার।

রাতে উস্থির রাজ্য সভাপতি সন্দীপ ঘোষ পুনরায় বার্তা দিয়ে জানান, "আমাদের অনশন এবং ধর্না চলছে চলবেই। অনশনকারীদের ইউরিন টেস্ট-এর রেজাল্ট তাদের শারীরিক ক্ষয়ক্ষতি'র দিকেই নির্দেশ করছে"।

"তাই মঙ্গলবার তাদের আবার আমরা টেস্ট করাব। তারপরে আমরা সিদ্ধান্ত নেব। তাদের  পরিবর্তে অন্য জন বসাব কি না। কিন্তু সরকারের অমানবিক মুখ রাজ্যবাসির নজরে পড়েছে। কোন হেলদোল নেই রাজ্য সরকারের"।
 

তাঁর আবেদন, "আমরা চাই, রাজ্যের প্রাথমিক  শিক্ষক শিক্ষিকারা আপনারা সরকারের এই উদাসীনতার প্রতিবাদে এই অনশন মন্চে দলে দলে যোগ দিন"।

  ------- বিজ্ঞাপন -------

  ------- বিজ্ঞাপন -------

 ------- বিজ্ঞাপন -------

No comments